Homeভাইভা অভিজ্ঞতাসফল ভাইভা অভিজ্ঞতা খন্দকার আসাদুল্লাহিল গালিব

সফল ভাইভা অভিজ্ঞতা খন্দকার আসাদুল্লাহিল গালিব

সফল ভাইভা অভিজ্ঞতা
খন্দকার আসাদুল্লাহিল গালিব
সহকারী কমিশনার(কর) এ সুপারিশ প্রাপ্ত
মেধাক্রমঃ ০২
৩৮ তম বিসিএস।
ফিন্যান্স, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।
সেশনঃ ২০১২-২০১৩
বোর্ড: শাহজাহান আলী মোল্লা স্যার
চয়েজঃ পুলিশ, প্রশাসন, কর, অডিট
সিরিয়ালঃ ৭/১২
সময়ঃ ১৭-২২ মিনিট।
সালাম দিয়ে ভিতরে ঢুকলাম। স্যার বসতে বললেন। ধন্যবাদ জানিয়ে বসলাম।
চেয়ারম্যান স্যারঃ মি. গালিব আপনার প্রথম পছন্দ দেখছি পুলিশ। প্রশাসন আপনার ২য় পছন্দ। কেন পুলিশে যেতে চান?
আমিঃ আমার উত্তর রেডি ছিল। সেটাই বললাম।
চেয়ারম্যান স্যারঃ একজন পুলিশ অফিসার এর কি কি গুন থাকা দরকার?
আমিঃ বললাম।
চেয়ারম্যান স্যারঃ আপনিতো সবকিছুই বললেন Honesty এর কথা বললেন না।
আমিঃ স্যার, Honesty প্রতিটি service এর পূর্বশর্ত। একজন পুলিশ অফিসারকে অবশ্যই Honest হতে হবে। Extremely sorry sir. I shouldn’t have missed it.
চেয়ারম্যান স্যারঃ আপনি যে পুলিশে যেতে চান পুলিশকে তো কেউ পছন্দ করে না। পুলিশেরতো ইমেজ সংকট আছে। এ ব্যাপারে আপনার কি মনে হয়?
আমিঃ স্যার পুলিশ বাহিনী দিনরাত মানুষের সেবায় নিয়োজিত। মানুষ বিপদে পড়লে প্রথম পুলিশের কাছে সাহায্যের জন্য আসে এবং সাহায্য পায়। তবে পুলিশের কিছুটা ইমেজসংকট আছে। কিছু আসাধু পুলিশ কর্মকর্তার জন্য কিছু মানুষের মাঝে পুলিশ সম্পর্কে বিরূপ ধারণা রয়েছে। আমি পুলিশ বাহিনীতে গিয়ে এই বিরূপ ধারণা দূর করার জন্য কাজ করতে চাই।
এক্স ১ঃ সবাইতো বলে বাংলাদেশের সব ওসি ঘুষখোর। এ ব্যাপারে আপনার কি মনে হয়?
আমিঃ স্যার কিছু অসাধু ও ঘুষখোর আছে ঠিক কিন্তু স্যার আমি মনে করি না সব ওসি ঘুষখোর। অনেক অফিসার আছে যারা জীবনবাজি রেখে দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। যারা দুর্নীতিগ্রস্থ তাদের বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার
নেতৃত্বে বর্তমান সরকার জিরো টলারেন্সনীতি গ্রহন করেছে। আমি বিশ্বাস করি এর ফলে কিছু মানুষের এই বিরূপ ধারণা পরিবর্তন হবে।
এক্স ১ঃ ওসিরা তো আপনার কথা শুনবে না। আপনি কি করবেন?
আমিঃ PRB এর ধারা উল্লেখ করে বললাম কেন ওসি আমার কথা শুনতে বাধ্য। না শুনলে কি করব।
এক্স ১ঃ আইন কানুনতো ভালোই জানেন দেখছি(হেসে বললেন) । বর্তমানে চলমান ক্যসিনো অভিযান নিয়ে আপনার কি ধারণা?
আমিঃ আওয়ামীলীগ সরকারের জিরো টলারেন্সনীতি এবং এ ব্যাপারে সাফল্য নিয়ে বললাম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দক্ষ নেতৃত্বের কথা বললাম।
এক্স ১ঃ বর্তমান যুবসমাজের মাদকের প্রতি আসক্তি হওয়ার কারন কি? পুলিশের ব্যর্থতা আছে কিনা?
আমিঃ স্যার কিছুটা ব্যর্থতা পুলিশের অবশ্যই আছে। তবে নৈতিকতা শিক্ষার অভাব এখানে বড় কারন বলে আমি মনে করি।………
এক্স ২ঃ বাংলাদেশ সাথে কোন কোন দেশের Extradition Treaty আছে?
আমিঃ স্যার, ভারত এবং থাইল্যান্ড এর সাথে।
এক্স ২ঃ থাইল্যান্ড থেকে একজন আসামি ফেরত আনা হয়েছে কে বলতে পারবেন।
আমিঃ সরি স্যার।
এক্স ২ঃ বজলুল হুদার নাম শুনেছেন।
আমিঃ স্যার, মনে পড়েছে। বঙ্গবন্ধুর খুনী বজলুল হুদাকে ফিরিয়ে আনা হয়েছিল থাইল্যান্ড থেকে।
এক্স ২ঃ Interpol কি? এর কাজ কি?
আমিঃ বিস্তারিত বললাম। উদাহরণ সরূপ, কানাডার পালিয়ে থাকা বঙ্গবন্ধুর খুনী নূর চৌধুরী কে ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে ইন্টারপোল কিভাবে ভূমিকা রাখতে পারে বললাম।
এক্স ২ঃ বাংলাদেশ একজন সাবেক আইজিপি এখন একটি দেশের মিশন প্রধান হিসেবে আছেন। কে বলতে পারেন।
আমিঃ স্যার,সাবেক আইজিপি হাসান মাহমুদ খন্দকার এখন স্পেনের রাষ্ট্রদূত হিসেবে আছেন।
চেয়ারম্যান স্যারঃ আপনার বাড়িতো দেখছি গোপালগঞ্জ। জাতির পিতার সমাধীস্থলে গিয়েছেন?
আমিঃ জ্বী স্যার গিয়েছি।
চেয়ারম্যান স্যার: কয়বার ?
আমি: ৩ বার গিয়েছি স্যার। ২০১০ ও ২০১২ সালে প্রধানমন্ত্রীর নিকট থেকে সংবর্ধণা গ্রহণ করতে এবং গত বছর একবার গিয়েছিলাম স্যার।
চেয়ারম্যান স্যার: আপনি কি শুধু মেডেল নিতে গিয়েছেন ?
আমি: না, স্যার। ছোটবেলা থেকেই বঙ্গবন্ধুর প্রতি আবেগ ও ভালবাসা ছিল। সেই ভালবাসা থেকেই গিয়েছে স্যার।
চেয়ারম্যান স্যার: সেখানে কি কি দেখেছেন আপনি ?
আমি: বিস্তারিত বললাম।
চেয়ারম্যান স্যার: আচ্ছা বঙ্গবন্ধু যে ঘরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, সেই ঘরটি কোথায় বলতে পারেন ?
আমি: সরি স্যার, এই ‍মুহূর্তে মনে করতে পারছি না।
চেয়ারম্যান স্যার: আপনি মনে হয় কাউকে জিজ্ঞাসা করেননি। বঙ্গবন্ধুর সমাধির পাশেই একটি টিনের ঘর আছে, সেই ঘরে তিনি জন্মগ্রহণ করেন।
চেয়ারম্যান স্যার: আপনি ধানমন্ডি-৩২ এ গিয়েছেন ?
আমি: জ্বী, স্যার।
চেয়ারম্যান স্যার: কতবার গিয়েছেন ? সেখানে কি কি দেখেছেন ?
আমি: ৪ বার গিয়েছে স্যার। আমি বিস্তারিত বললাম।
চেয়ারম্যান স্যার: বঙ্গবন্ধুর জীবনযাপন কেমন ছিল সেই সম্পর্কে তো কিছুই বললেন না।
আমি: বঙ্গবন্ধু অত্যন্ত সাদাসিধে জীবনযাপন করতেন। বঙ্গবন্ধুর পোশাক, বাসার আসবাবপত্র ও ডাইনিং রুম নিয়ে……বললাম।
Ex-2: আপনার বাবা কি করেন ?
আমি: বললাম।
চেয়ারম্যান স্যার: ঠিক আছে গালিব, আপনি আসতে পারেন।
আমি: স্যার, দোয়া করবেন বলে উঠে দাঁড়ালাম।
চেয়ারম্যান স্যার: আপনি লিখিত পরীক্ষায় English Essay কোনটা লিখেছেন ?
আমি: স্যার, Blue Economy.
চেয়ারম্যান স্যার: বাংলাদেশের Blue Economy নিয়ে কিছু বলেন।
আমি: বললাম।
চেয়ারম্যান স্যার: আমাদের সমুদ্রে সীমানার মধ্যে কি কি খনিজ সম্পদ আছে ?
আমি: জিরকন ও আরো দুইটির নাম বললাম।
চেয়ারম্যান স্যার: মোট ১২ টা খনিজ পাওয়া যায়। নাম বলতে পারবেন ? আপনি তো শুধু ৩ টা বললেন।
আমি: Sorry স্যার, এই মুহূর্তে মনে করতে পারছি না।
চেয়ারম্যান স্যার: আচ্ছা ঠিক আছে গালিব।
আমি: সালাম দিয়ে বিদায় নিলাম।

More Job Circular

More Job Circular