৩৮তম বিসিএস লিখিত প্রস্তুতিঃ আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী

বিসিএস লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি কৌশল : আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী- Mna Choudhury

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘের উদ্দেশ্য ও মূলনীতিঃ

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর বিশ্ব নেতারা যুদ্ধ বন্ধ এবং শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য গঠন করেন লিগ অব নেশন্স। সংঘর্ষ ও উত্তেজনা রোধে সংস্থাটি কার্যকর ভূমিকা পালনে ব্যর্থ হয়।

১৯৩৯ সালে শুরু হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। এ যুদ্ধের ধ্বংসাত্মক তাণ্ডবলীলা এবং সৃষ্ট মানবতার বিপর্যয় বিশ্ব নেতাদের শান্তি ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে পদক্ষেপ গ্রহণে অনুপ্রাণিত করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষে বিজয়ী মিত্রশক্তি পরবর্তীকালে যাতে যুদ্ধ ও সংঘাত প্রতিরোধ করা যায় এই উদ্দেশ্যে জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠা করতে উদ্যোগী হয়।

একটি কার্যকর আন্তর্জাতিক সংগঠন গড়ে তোলার প্রচেষ্টায় নানা ধরনের পদক্ষেপ গৃহীত হয় এবং লিগ অব নেশন্স-এর ধ্বংস্তুপের ওপর দাঁড়িয়ে জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৪১ সালের জুন থেকে ১৯৪৫ সালের জুন পর্যন্ত বিশ্ব নেতাদের নানা প্রচেষ্টায় এবং গৃহীত বিভিন্ন সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে ২৪ অক্টোবর ১৯৪৫ সালে গড়ে ওঠে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘের উদ্দেশ্যঃ

জাতিসংঘ সনদের প্রস্তাবনা এবং ১নং অনুচ্ছেদে সংস্থাটির উদ্দেশ্যসমূহ বর্ণিত হয়েছে এভাবে-
১. বিশ্বব্যাপী শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষা করা[১(১) নং অনুচ্ছেদ]
২. পৃথিবীর স্বাধীন রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপন করা[১(২) নং অনুচ্ছেদ]
৩. মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতার প্রতি শ্রদ্ধাবোধ[১(৩) নং অনুচ্ছেদ]
৪. জাতিসংঘকে রাষ্ট্রসমূহের ক্রিয়া-কলাপের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করা[১(৪) নং অনুচ্ছেদ]

জাতিসংঘের মূলনীতিঃ

১. জাতিসংঘের সকল সদস্যের সার্বভৌম ক্ষমতার স্বীকৃতি এবং সমমর্যাদার নীতিতে বিশ্বাসী।
২. জাতিসংঘের সকল সদস্যই জাতিসংঘ সনদের আনুগত্যের প্রতি অটল থাকবে।
৩. সদস্যরাষ্ট্রসমূহ আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী বিরোধসমূহের শান্তিপূর্ণ নিষ্পত্তি করবে।
৪. কোনো সদস্য রাষ্ট্রই এমন কোনো কাজ করবে না যাতে অপর রাষ্ট্রের ভৌগোলিক অখন্ডতা নষ্ট হয়।
৫. কোনো সদস্য রাষ্ট্রই অপর রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করবে না এবং রাজনৈতিক স্বাধীনতার বিপক্ষে কোনো ধরণের শক্তি প্রদর্শন বা হুমকি প্রদর্শন করবে না।
৬. সদস্য রাষ্ট্রসমূহ জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহীত কার্যাবলীতে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করবে।
৭. যে সমস্ত রাষ্ট্র জাতিসংষের সদস্য নয় তারাও যাতে প্রয়োজনে জাতিসংঘের নীতি অনুযায়ী আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষায় ব্যবস্থা নিতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে।

সৌজন্য : Mna Choudhury