৩৮ তম বিসিএস লিখিত প্রস্তুতিঃ সিলেক্টেড টপিক

বিসিএস রিটেন প্রস্তুতি যারা নিচ্ছেন, আপনারা নিচের সিলেক্টেড বিষয়গুলো পড়তে পারেন । এই নেটিটি ৩৮তম বিসিএস এর জন্য অনেক গুরুতাবপূর্ণ । 38th BCS Special Weitten Suggestions সিলেক্টেড টপিক নিচে দেওয়া হল ঃ

৩৮ তম বিসিএস লিখিত প্রস্তুতিঃ

প্রশ্ন: অপারেশন সি সাইট কি?

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে সংগঠিত নৌ তৎপরতার ভারতীয় নাম হচ্ছে অপারেশ সি সাইট। ১৯৬৫ সালের পাক ভারত যুদ্ধে ভারতের নৌবাহিনীর ভূমিকা ছিল খুবই বাজে। তাই ১৯৭১ সালে ভারত তাদের নৌবাহিনীকে সমৃদ্ধ করে। পাকিস্তানি সাবমেরিন গাজী ১৯৬৫ সালের পাক ভারত যুদ্ধে ভারতের সাবমেরিনগুলোর সাথে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে।

১৯৭১ সালের নভেম্বর -ডিসেম্বরে অপারেশন সি সাইট পরিচালিত হয়। এ সময় ভারত পাকিস্তানকে নৌযুদ্ধে পরাজিত করে। এ সময় সংগঠিত যুদ্ধের মাঝে অন্যতম হল পাকিস্তানি সাবমেরিন গাজীর সাথে ভারতের সাবমেরিনের যুদ্ধ। মুলত আইএনএস বিক্রম নামের ভারতের বিমানবাহী রণতরী ডুবাতে ১৯৭১ সালে পাকিস্তান তাদের সাবমেরিন পাঠায়।

অপারেশন সি সাইট ভারত মহাসাগর, আরব সাগর এবং বঙ্গোপসাগর এসব জায়গায় পরিচালিত হয়। গাজীর বিপরীতে ভারত তাদের সাবমেরিন পাঠায়। এখানে কিছু রোমাঞ্চকর ঘটনা ঘটে যা পরবর্তীতে ২০১৭ সালে ভারতীয় সিনেমা গাজী এটাকে দেখানো হয়।

গাজী ভারতের একটি পণ্যবাহী জাহাজ ডুবিয়ে দিলে ভারতীয় সাবমেরিনের ক্যাপ্টেন গাজীর দিকে টর্পেডো ছুড়েন। তা লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে গাজী পালটা আক্রমণ চালায়। ভারতের সাবমেরিনটি এক পর্যায়ে পাকিস্তানি মাইনের সাথে ধাক্কা লাগলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কিন্তু সহযোগী ক্যপ্টেনের বুদ্ধিমত্তায় শেষ পর্যন্ত ভারতীয় সাবমেরিনটি গাজীকে পরাস্ত করে এবং বিজয়ী হয়। ৩০ নভেম্বর ১৯৭১ সালে সাবমেরিন গাজী ডুবে যায়। তবে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে বলা হয় সাবমেরিন গাজী তাদের নিজস্ব মাইনে আঘাতপ্রাপ্ত হয়।

অপারেশন সি সাইটে ভারত রাশিয়ার সহযোগীতা লাভ করে। অন্যদিকে পাকিস্তান আমেরিকা, যুক্তরাজ্য, সৌদি এবং ইন্দোনেশীয়ার সহযোগীতা লাভ করে।

প্রশ্ন: টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী কি?

উত্তর:

প্রধানমন্ত্রী সংসদ সদস্য থেকে যাদের মন্ত্রিত্ব দেন তারা হল ক্যাবিনেট মন্ত্রী। একটি মন্ত্রীসভায় ক্যাবিনেট মন্ত্রী যতজন হবে তার ১০ ভাগের ১ ভাগ নিয়ে গঠিত হয় টেকনোক্র্যাট কোটা। এই কোটায় প্রধানমন্ত্রী সংসদ সদস্য নয় এমন যে কাউকে মন্ত্রিত্ব দিতে পারেন।
অর্থাৎ, প্রধানমন্ত্রী যদি ৪০ জন সংসদ সদস্যকে ক্যাবিনেট মন্ত্রিত্ব দিয়ে মন্ত্রীসভা গঠন করেন তবে সংসদ সদস্য নয় এমন ৪ জনকে টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী করার অধিকার রাখেন। অর্থাৎ, ক্যাবিনেট মন্ত্রী যতজন তার ১০ ভাগের ১ ভাগকে টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী করার ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর আছেন।

এখানে বলে রাখা ভালো, টেকনোক্র্যাট কোটা পুরোপুরি প্রধানমন্ত্রীর হাতে সংরক্ষিত থাকে। আর, আমাদের দেশে মন্ত্রীসভার কাঠামো কেমন হবে তা নির্ধারণের ক্ষমতাও প্রধানমন্ত্রীর হাতে সংরক্ষিত থাকে।

প্রশ্ন-আমলাতন্ত্র কি?

উত্তর:

আমলাতন্ত্র (ইংরেজি: Bureaucracy) এমন এক শাসনব্যবস্থা যাতে স্থায়ী সরকারি কর্মকর্তারা দায়িত্ব বিভাজনের মাধ্যমে সরকারের সকল কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে থাকে। আমলারা জনপ্রতিনিধি নয় বা ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত নয়। ফলে রাজনৈতিক সরকার পরিবর্তিত হলেও আমলারা পদ হারায় না। এই চারিত্র্যের কারণে আমলাতন্ত্রে সরকার পরিচালনার ধারাবাহিকতা স্বয়ংক্রিয়ভাবে সংরক্ষিত হয়।

আমলাতন্ত্রের আভিধানিক সঙ্গার্থ হলো: আমলা হচ্ছেন সরকারের অংশ যারা অনির্বাচিত। আমলাদের নীতিনির্ধারণ তৈরিকারক হিসেবেও আখ্যা দেয়া হয়। ঐতিহাসিকভাবে, আমলারা সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনা করেন। যারা জনগণের ভোট দ্বারা নির্বাচিত নন। বর্তমান সময়ে, আমলাদের মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের বড় একটি অংশ পরিচালিত হয়।

ব্যুৎপত্তি সম্পাদনা:-
আমলাতন্ত্রের ইংরেজি প্রতিশব্দ বুরোক্রেসি।, বুরোক্রেসির মূল উৎপত্তি ফরাসী শব্দ থেকে। ফরাসী বুরো (bureau’) শব্দের অর্থ ডেস্ক বা অফিস। আর গ্রিক শব্দ κράτος ক্র্যাটোস – শাসন বা রাজনৈতিক শক্তি। ১৭শ শতাব্দীর মধ্যবর্ত্তী সময়ে ফরাসী অর্থনীতিবিদ জ্যাকুইস ক্ল্যদে ম্যারি ভিনসেন্ট দ্য গোউর্ন্যে প্রথম এই শব্দের প্রচলন করেন। তিনি স্যাটায়ার শব্দ হিসেবে এই শব্দের প্রচলন শুরু করেন। যদিও তিনি কখনই এই শব্দ লিখেন নি, কিন্তু তার লেখা এক চিঠিতে এই শব্দের ইঙ্গিত পাওয়া যায়।

তথ্যসূত্র :
-অনলাইন
-উইকিপিডিয়া
-The gazi attack movie.

#collected By
[সৌরভ দেবনাথ সাগর]
[MBA, SUST]